জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন ২০০৪

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন,২০০৪ [বাংলাদেশ]

বাংলাদেশ গেজেট

অতিরিক্ত সংখ্যা

কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রকাশিত

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭,২০০৪

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ

ঢাকা,২৩ শে অগ্রহায়ণ,১৪১১/ ৭ ই ডিসেম্বর,২০০৪

সংসদ কর্তৃক গৃহীত নিম্নলিখিত আইনটি ২৩ শে অগ্রহায়ণ,১৪১১/ ৭ ই ডিসেম্বর,২০০৪ তারিখে রাষ্ট্রপতির সম্মতিলাভ করিয়াছে এবং এতদ্বারা এই আইনটি সর্বসাধারণের অবগতির জন্য প্রকাশ করা যাইতেছে :-

২০০৪ সনের ২৯ নং আইন

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন সংশোধন ও সংহতকরণকল্পে প্রণীত আইন

যেহেতু জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সংক্রান্ত বিষয়ে প্রচলিত আইনের সংশোধন ও সংহতকরণ সমীচীন ও প্রয়োজনীয়;

সেহেতু এতদ্বারা নিম্নরূপ আইন প্রণয়ন করা হইল:-

অধ্যায়-১

প্রারম্ভিক

১। সংক্ষিপ্ত শিরোনাম ও প্রবর্তন ।-

(১) এই আইন জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন,২০০৪ নামে অভিহিত হইবে ।

(২) সরকার, সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, যেই তারিখ নির্ধারণ করিবে সেই তারিখে এই আইন কার্যকর হইবে ।

২ । সংজ্ঞা ।- বিষয় বা প্রসংগের পরিপন্থী না হইলে ,এই আইনে —

(ক) ” অভিভাবক” অর্থ The Guardians and Wards Act,1989 (Act VIII of 1980) এ সংজ্ঞায়িত অভিভাবক;

(খ) ” ইউনিয়ন পরিষদ” অর্থ The Local Government (Union Parishads) Ordinance,1983 (Ordinance No. LI of 1983) এর অধীন সংজ্ঞায়িত ইউনিয়ন পরিষদ;

(গ) ” ওয়ার্ড” অর্থ সিটি করপোরেশন বা পৌরসভা বা ইউনিয়ন পরিষদের কোনো ওয়ার্ড ;

(ঘ) “কমিশনার” অর্থ সিটি করপোরেশন বা পৌরসভার কোনো কমিশনার;

(ঙ) “ক্যান্টনম্যান্ট” অর্থ Cantonments Act. 1924 (Act II of 1924) এর অধীন গঠিত কোন ক্যান্টনম্যান্ট;

(চ) “জন্ম বা মৃত্যু সনদ” অর্থ এই আইনের অধীন জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন বহিতে লিপিবদ্ধ তথ্যের নিবন্ধক কর্তৃক প্রত্যায়িত অনুলিপি;

(ছ) “জন্ম” অর্থ কোনো ব্যক্তির জীবিত ভূমিষ্ট হওয়া;

(জ) “নির্ধারিত” অর্থ এই আইনের অধীন প্রণীত বিধি দ্বারা নির্ধারিত;

(ঝ) “নিবন্ধক” অর্থ ধারা ৪ এর অধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি;

(ঞ) “নিবন্ধন” অর্থ নিবন্ধন বহিতে কোন ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন করা ;

(ট) “নিবন্ধন বহি” অর্থ কোন ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যুর নিবন্ধন বহি;

(ঠ) “পৌরসভা” অর্থ Paurashava Ordinance,1977 ( Ord. No. XXVI of 1977) এর অধীন গঠিত কোনো পৌরসভা;

(ড) “প্রশাসক” অর্থ Paurashava Ordinance,1977 ( Ord. No. XXVI of 1977) এর অধীন কোনো প্রশাসক;

(ঢ) “ব্যক্তি” অর্থ কোন বাংলাদেশী অথবা বাংলাদেশে বসবাসকারী কোনো বিদেশী এবং বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণকারী কোনো শরণার্থী ;

(ণ) “মৃত্যু” অর্থ কোনো ব্যক্তির জীবনাবসান হওয়া;

(ত) “সদস্য” অর্থ ইউনিয়ন পরিষদের কোনো সদস্য;

(থ) “সরকার” অর্থ স্থানীয় সরকার বিভাগ,স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় ; এবং

(দ) “সিটি করপোরেশন” অর্থ ঢাকা, চট্টগ্রাম,খুলনা,রাজশাহী,বরিশাল ও সিলেট সিটি করপোরেশন এবং কোনো আইনের অধীন সময়ে সময়ে গঠিত অন্য কোন সিটি করপোরেশন ।

৩ । আইনের প্রাধান্য ।- অন্য কোনো আইনে যাহা কিছুই থাকুক না কেন, এই আইন কার্যকর হইবার পর এই আইনের বিধান মোতাবেক কোনো ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন করিতে হইবে ।

অধ্যায়-২

নিবন্ধক ও নিবন্ধন

৪ । নিবন্ধক ।- জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য বর্ণিত ব্যক্তিগণ নিবন্ধক হিসাবে দায়িত্ব পালন করিবেন,যথা :-

(ক) সিটি করপোরেশন এলাকায় জন্ম গ্রহণকারী, মৃত্যুবরণকারী অথবা স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সিটি করপোরেশন মেয়র বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা বা কমিশনার;

(খ) পৌরসভা এলাকায় জন্ম গ্রহণকারী, মৃত্যুবরণকারী অথবা স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট পৌরসভার চেয়ারম্যান বা প্রশাসক বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত অন্য কোনো কর্মকর্তা বা কমিশনার;

(গ) ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় জন্ম গ্রহণকারী, মৃত্যুবরণকারী অথবা স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা সরকার কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা বা সদস্য;

(ঘ) ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী, মৃত্যুবরণকারী অথবা স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা;

(ঙ) বিদেশে জন্মগ্রহণকারী ও মৃত্যুবরণকারী কোনো বাংলাদেশীর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা ৷

৫ ৷ নিবন্ধন – (১) জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোষ্ঠী, লিঙ্গ নির্বিশেষে নিবন্ধক সকল ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বহিতে নিবন্ধন করিবে ৷

(২) নির্দিষ্ট সময় ও নির্ধারিত পদ্ধতিতে কোনো ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য নিবন্ধকের নিকট তথ্য প্রেরণ করিতে হইবে ৷

(৩) জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য এই ধারার অধীন তথ্য প্রদানের ক্ষেত্রে তথ্য প্রদানকারীর এই মর্মে একটি ঘোষণা থাকিবে যে, উক্ত তথ্য সঠিক এবং জন্ম বা মৃত্যু ইতিপূর্বে নিবন্ধিত হয় নাই ৷

৬ ৷ নিবন্ধকের দায়িত্ব – নিবন্ধকের নিম্নবর্ণিত দায়িত্ব থাকিবে, যথাঃ-

(ক) সকল ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন নিশ্চিত করা;

(খ) নিবন্ধনের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ, এবং ফরম, রেজিস্টার ও সনদ ছাপানো অথবা সংগ্রহ;

(গ) নিবন্ধন সংক্রান্ত নথি পত্র বা নিবন্ধন বহি সংরক্ষণ করা;

(ঘ) জন্ম ও মৃত্যু সনদ সরবরাহ করা; এবং

(ঙ) বিধি দ্বারা নির্ধারিত অন্য কোনো দায়িত্ব ৷

৭ ৷ নিবন্ধকের ক্ষমতা- (১) কোনো ব্যক্তির নিবন্ধন করার জন্য তথ্যের সত্যতার যাচাই এর প্রয়োজনে নিবন্ধক নিজে অথবা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির দ্বারা তদন্ত করিতে পারিবেন ৷

(২) নির্দিষ্ট সময়ের কোনো ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন করা না হইলে নিবন্ধক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির পিতা মাতা বা পুত্র বা কন্যা বা অভিভাবক অথবা নির্ধারিত কোনো ব্যক্তিকে জন্ম ও মৃত্যুর তথ্য প্রদানের নির্দেশ সম্বলিত নোটিশ জারী করিতে পারিবেন ৷

(৩) উপ-ধারা (১) এর অধীন তদন্তের স্বার্থে নিবন্ধক বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি নিবন্ধন বহি তলব করিতে এবং প্রয়োজনে কোনো ব্যক্তিকে সাক্ষ্য প্রদানের নোটিশ দিতে পারিবেন ৷

৮ ৷ জন্ম ও মৃত্যু তথ্য প্রদানের জন্য দায়ী ব্যক্তি – (১) শিশুর পিতা বা মাতা বা অভিভাবক বা নির্ধারিত ব্যক্তি উক্ত শিশুর জন্মের ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে জন্ম সংক্রান্ত তথ্য নিবন্ধকের নিকট প্রদানের জন্য বাধ্য থাকিবেন ৷

(২) মৃত ব্যক্তির পুত্র বা কন্যা বা অভিভাবক বা নির্ধারিত ব্যক্তি মৃত্যুর ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য নিবন্ধকের নিকট প্রদানের জন্য বাধ্য থাকিবেন ৷

৯ ৷ কতিপয় কর্মকর্তা বা কর্মচারীর দায়িত্ব – (১) নিম্নবর্ণিত ব্যক্তিগণ কোনো ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য নিবন্ধকের নিকট তথ্য প্রেরণ করিতে পারিবেন, যথাঃ-

(ক) ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, এবং সচিব;

(খ) গ্রাম পুলিশ;

(গ) সিটি করপোরেশন বা পৌরসভার কমিশনার;

(ঘ) ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, সিটি করপোরেশন অথবা ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মী ও পরিবার কল্যাণ কর্মী;

(ঙ) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সেক্টরে নিয়োজিত বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের (এনজিও) মাঠকর্মী;

(চ) কোনো সরকারী বা বেসরকারী হাসপাতাল বা ক্লিনিক বা মাতৃসদন বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে জন্মগ্রহণ ও মৃত্যুবরণের ক্ষেত্রে উহার দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিক্যাল অফিসার অথবা ডাক্তার বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা;

(ছ) কোনো গোরস্থান বা শ্মশান ঘাটের তত্ত্বাবধায়ক;

(জ) নিবন্ধক কর্তৃক নিয়োজিত অন্য কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারী;

(ঝ) জেলখানায় জন্ম ও মৃত্যুর ক্ষেত্রে জেল সুপার বা জেলার বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি;

(ঞ) পরিত্যক্ত শিশু বা সাধারণ স্থানে (Public Place) পড়িয়া থাকা পরিচয়হীন মৃত ব্যক্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা; এবং

(ট) নির্ধারিত অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ৷

(২) কোনো ব্যক্তির জন্ম ও মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য উপ-ধারা (১) এ উল্লেখিত ব্যক্তির নিকট সরবরাহ করিলে তিনি নিজে উহা নিবন্ধনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন অথবা তথ্য প্রদানকারী ব্যক্তিকে নিবন্ধনের পরামর্শসহ প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করিবেন ৷

১০ ৷ শিশুর নাম নির্ধারণ – জন্ম নিবন্ধনের পূর্বে শিশুর নাম নির্ধারণ করিতে হইবে :

তবে শর্ত থাকে যে, কোনো শিশুর নাম নির্ধারণ করা না হইলে উক্ত শিশুর জন্ম নিবন্ধন করা যাইবে এবং সেইক্ষেত্রে নিবন্ধনের পরবর্তী ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে তাহার নাম সরবরাহ করিতে হইবে ৷

১১ ৷ জন্ম ও মৃত্যু সনদ প্রদান – কোনো ব্যক্তির আবেদনক্রমে নিবন্ধক নির্ধারিত ফি ও পদ্ধতিতে নিবন্ধিত ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু সনদ প্রদান করিবেন ৷

১২ ৷ নিবন্ধন সংক্রান্ত তথ্য অনুসন্ধান – (১) কোনো ব্যক্তি নির্ধারিত ফি প্রদান সাপেক্ষে নিবন্ধন বহির যে কোনো তথ্যের বা উদ্বৃতাংশের জন্য নিবন্ধকের নিকট আবেদন করিতে পারিবেন :

তবে শর্ত থাকে যে, উপ ধারা (১) এর অধীন প্রদত্ত উদ্বৃতাংশে মৃত্যুর কারণ অন্তর্ভূক্ত করা যাইবে না ৷

(২) উপ-ধারা (১) এর অধীন প্রদত্ত সকল তথ্য ও উদ্বৃতাংশ নিবন্ধন কর্তৃক প্রত্যায়িত হইতে হইবে এবং উহা সাক্ষ্য হিসাবে গ্রহণযোগ্য হইবে ৷

১৩ ৷ বিলম্বিত নিবন্ধন ।- ধারা ৮ এ উল্লিখিত নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জন্ম বা মৃত্যুর তথ্য নিবন্ধকের নিকট প্রেরণ করা না হইলে পরবর্তী সময় উহা নির্ধারিত সময়, পদ্ধতি ও ফি প্রদান সাপেক্ষে নিবন্ধন করা যাইবে :

তবে শর্ত থাকে যে, এই আইন কার্যকর হইবার পূর্বে জীবিত ও মৃত ব্যক্তির নিবন্ধনের ক্ষেত্রে এই আইন কার্যকর হইবার ২ (দুই) বত্সরের মধ্যে ফি এর প্রয়োজন হইবে না ৷

অধ্যায়-৩

নিবন্ধন বহি সংরক্ষণ, সংশোধন ও পরিদর্শন

১৪ ৷ রেকর্ড সংরক্ষণ । – (১) নিবন্ধক নির্ধারিত পদ্ধতি ও ফরমে নিবন্ধন বহি সংরক্ষণ করিবেন এবং নিবন্ধন বহি স্থায়ী রেকর্ড হিসাবে গণ্য হইবে ৷

(২) নিবন্ধন বহি হারাইয়া গেলে বা বিনষ্ট হইলে নিবন্ধক উহার জন্য দায়ী থাকিবেন ৷

(৩) নিবন্ধন বহি ছাড়া জন্ম বা মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য নির্ধারিত পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা যাইবে ৷

১৫ ৷ নিবন্ধন বহি সংশোধন । – (১) নিবন্ধন বহিতে কোন ভুল তথ্য লিপিবদ্ধ হইয়া থাকিলে, উহা সংশোধনের জন্য নির্ধারিত ফিসহ আবেদন করা যাইবে ৷

(২) উপ-ধারা (১) এর অধীন আবেদন যথাযথ মনে করিলে নিবন্ধক নিবন্ধন বহি সংশোধন করিবেন এবং সংশোধিত স্থানে তারিখসহ স্বাক্ষর প্রদান করিবেন ৷

১৬ ৷ তত্ত্বাবধান ও পরিদর্শন ।- সরকার কর্তৃক এতদুদ্দেশ্যে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো ব্যক্তি নিবন্ধকের কার্যালয়, নিবন্ধন বহি ও নিবন্ধন সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম তত্ত্বাবধান ও পরিদর্শন করিতে পারিবেন ৷

১৭ ৷ প্রতিবেদন ।- সরকার প্রয়োজনে, নিবন্ধকের নিকট হইতে যে কোনো সময় নিবন্ধন সংক্রান্ত তথ্য বা উহার প্রতিবেদন তলব করিতে পারিবে এবং নিবন্ধক উহা সরকারের নিকট সরবরাহ করিতে বাধ্য থাকিবেন ৷

অধ্যায়-৪

বিবিধ

১৮ ৷ জন্ম ও মৃত্যু সনদের সাক্ষ্য মূল্য – (১) কোনো ব্যক্তির বয়স জন্ম ও মৃত্যু বৃত্তান্ত প্রমাণের ক্ষেত্রে কোনো অফিস বা আদালতে বা স্কুল-কলেজে বা সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এই আইনের অধীন প্রদত্ত জন্ম বা মৃত্যু সনদ সাক্ষ্য হিসাবে বিবেচ্য হইবে ৷

(২) নিবন্ধন সংক্রান্ত সকল নথিপত্র ও নিবন্ধন বহি The Evidence Act, 1872 (Act 1 of 1872) এর Public Document (সাধারণ দলিল) যেই অর্থে ব্যবহৃত হইয়াছে সেই অর্থে Public Document (সাধারণ দলিল) বলিয়া গণ্য হইবে ৷

(৩) অন্য কোন আইনে যাহা কিছুই থাকুক না কেন, নিম্নবর্ণিত বিষয়াদির ক্ষেত্রে বয়স প্রমাণের জন্য এই আইনের অধীন প্রদত্ত জন্ম সনদ ব্যবহার করিতে হইবে, যথাঃ-

(ক) পাসপোর্ট ইস্যু;

(খ) বিবাহ নিবন্ধন;

(গ) শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি;

(ঘ) সরকারি, বেসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দান;

(ঙ) ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু;

(চ) ভোটার তালিকা প্রণয়ন;

(ছ) জমি রেজিস্ট্রেশন; এবং

(জ) বিধি দ্বারা নির্ধারিত অন্য কোন ক্ষেত্রে ৷

(৪) উপ-ধারা (৩) এ যাহা কিছুই থাকুন না কেন, কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জন্ম সনদ ব্যতীত ভর্তি করিতে পারিবে এবং সেই ক্ষেত্রে ভর্তির পরবর্তী ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে জন্ম সনদ উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দাখিল করিতে হইবে ৷

(৫) এই আইন কার্যকর হইবার অব্যবহিত পূর্বে অন্য কোনো আইনের অধীন কোনো জন্ম ও মৃত্যুর সনদ উপ-ধারা (৩) এর উদ্দেশ্যে পূরণকল্পে ব্যবহার করা যাইবে ৷

১৯ ৷ জনসেবক ।- নিবন্ধক, the Penal Code (Act XLV of 1860) এর section 21 এ public servant (জনসেবক) অভিব্যক্তিটি যেই অর্থে ব্যবহৃত হইয়াছে সেই অর্থে public servant (জনসেবক) বলিয়া গণ্য হইবে ৷

২০ ৷ আপীল – নিবন্ধকের কোনো আদেশের বিরুদ্ধে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি আদেশের ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে নিম্নবর্ণিত কর্তৃপক্ষের নিকট আপীল করিতে পারিবেন, যথা :-

(ক) ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অথবা ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির আদেশের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার;

(খ) পৌরসভার চেয়ারম্যান বা প্রশাসক বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা বা কমিশনারের আদেশের বিরুদ্ধে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট;

(গ) ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট অথবা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আদেশের বিরুদ্ধে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট;

(ঘ) সিটি কর্পোরেশনের মেয়র অথবা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা কমিশনারের আদেশের বিরুদ্ধে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট; এবং

(ঙ) রাষ্ট্রদূত বা তত্কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আদেশের বিরুদ্ধে সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ ৷

২১ ৷ দণ্ড – এই আইনের বিধান বা তদধীন প্রণীত বিধি লঙ্ঘনকারী নিবন্ধক বা কোনো ব্যক্তি অনধিক ৫০০.০০ (পাঁচশত) টাকা অর্থদন্ডে অথবা অনধিক দুই মাস বিনাশ্রম কারাদন্ডে অথবা উভয় দন্ডে দন্ডনীয় হইবেন ৷

২২ ৷ মামলা দায়ের – এই আইনের অধীন দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার জন্য সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি অথবা নিবন্ধক ম্যাজিস্ট্রেট এর আদালতে মামলা দায়ের করিতে পারিবেন ৷

২৩ ৷ বিধি প্রণয়নের ক্ষমতা ।- এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে সরকার, সরকারি গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, বিধি প্রণয়ন করিতে পারিবে ৷

২৪ ৷ রহিতকরণ ও হেফাজত – (১) The Births and Deaths Registration Act, 1873 (Bengal Act IV of 1873) এতদ্বারা রহিত করা হইল ৷

(২) The Births, Deaths and Marriages Registration Act, 1886(Bengal Act VI of 1886) এর জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য বিধানাবলী এতদ্বারা রহিত করা হইল ৷

(৩) উপ-ধারা (১) ও (২) এর অধীন রহিতকরণ সত্ত্বেও, রহিত Act ও বিধানাবলির অধীন কৃত সকল কাজকর্ম বা গৃহীত ব্যবস্থা এই আইনের অধীন কৃত বা গৃহীত হইয়াছে বলিয়া গণ্য হইবে ৷

খন্দকার ফজলুর রহমান

সচিব ৷

তথ্যসূত্র :

মোঃ নূর-নবী (উপ-সচিব), উপ-নিয়ন্ত্রক, বাংলাদেশ সরকারী মুদ্রণালয়, তেজগাঁও, ঢাকা কর্তৃক মুদ্রিত ৷

মোঃ আমিন জুবেরী আলম, উপ-নিয়ন্ত্রক, বাংলাদেশ ফরম ও প্রকাশনা অফিস,

তেজগাঁও, ঢাকা কর্তৃক প্রকাশিত ৷