অপমান সইতে না পেরে জয়পুরহাটে ছাত্রীর আত্মহত্যা

 

kalerkantho-logo.gif

জয়পুরহাট প্রতিনিধি

তৃষ্ণা রানী নামের অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। পরিবারের দাবি, কয়েক বখাটে যুবক বাড়ি থেকে জোরপূর্বক তাকে অপহরণের চেষ্টা করায় অপমান সইতে না পেরে সে আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার সকালে জয়পুরহাটের দেওনাহার গ্রামে আত্মহত্যার এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করা হয়েছে।পরিবার ও থানা সূত্রে জানা গেছে, জয়পুরহাট সদর উপজেলার দেওনাহার গ্রামের স্বপন কুমার মণ্ডলের মেয়ে তৃষ্ণা রানী স্থানীয় নাছরিন সিদ্দিকী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। স্কুলে যাওয়ার পথে পার্শ্ববর্তী নওগাঁ জেলার ধামুইরহাটের চন্দ্রকোলা গ্রামের আকাশ চন্দ্র হাওলাদারের বখাটে ছেলে সজল চন্দ্র প্রায়ই তাকে উত্ত্যক্ত করত। তৃষ্ণা বিষয়টি তার বাড়িতে জানালে তার বাবা স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে অভিযোগ করেন। এ খবর জানতে পেরে সজল ক্ষিপ্ত হয়ে সোমবার দুপুরে মোটরসাইকেলে বন্ধু এরশাদ ও গোলজারকে নিয়ে তৃষ্ণাকে তাদের বাড়ি থেকে জোরপূর্বক অপহরণের চেষ্টা করে। এ সময় তৃষ্ণার চিৎকারে গ্রামবাসী ছুটে এসে বাধা দিলে সজল বন্ধুদের নিয়ে পালিয়ে যায়।
ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপকভাবে জানাজানি হলে লজ্জায় তৃষ্ণা সোমবার সন্ধ্যায় কীটনাশক পান করে। অসুস্থ অবস্থায় সঙ্গে সঙ্গে তাকে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করানোর পর মঙ্গলবার ভোরে তার মৃত্যু হয়। তৃষ্ণার মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।


জয়পুরহাট সদর থানার ওসি আবদুর রশিদ জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা নেওয়া হয়েছে।

তথ্যসূত্র: কালেরকণ্ঠ, ১৩ মার্চ ২০১৩

Advertisements