অপমানে ক্ষোভে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা

16-03-13
logo-ittefaq
অপহরণ করতে না পেরে নির্যাতন
আশুগঞ্জ (বি.বাড়িয়া) সংবাদদাতা

অপহরণে ব্যর্থ হয়ে বখাটে শারীরিক নির্যাতন করায় অপমানে ক্ষোভে আত্মহত্যা করেছেন এক কলেজ ছাত্রী। নিহত ছাত্রীর নাম বাধন আক্তার ববি (১৬)। এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে গতকাল শুক্রবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা ইউনিয়নের শরিয়তনগর গ্রামে। এ ঘটনায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গ্রামের ব্যবসায়ী মৃত বজলুর রহমানের মেয়ে ববি আশুগঞ্জ সার কারখানা কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। কলেজে আসা-যাওয়ার পথে একই পাড়ার প্রিয়াংকা ষ্টুডিও’র মালিক মো. বাছির মিয়ার বখাটে ছেলে মুন্না (২৪) তাকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতো। বৃহস্পতিবার বিকালে ববি কলেজ থেকে বাসায় ফেরার পথে রেল ষ্টেশনের কাছে তাকে আটকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে মুন্না। এক পর্যায়ে না পেরে ববিকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মেরে চলে যায়।

এই অপমান সইতে না পেরে গতকাল দুপুরে ঘরের সিলিং ফ্যানে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন ববি। তাত্ক্ষণিক তার পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় নূর ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় তার সহপাঠী ও পরিবারের লোকজনের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এ ব্যাপারে নিহতের চাচা মো. নাছির উদ্দিন জানান, কলেজে আসা-যাওয়ার পথে বখাটে মুন্না প্রায়ই ববিকে উত্ত্যক্ত করতো। মুন্নার পরিবারকে বিষয়টি একাধিকবার জানালেও কোন লাভ হয়নি। গত বৃহস্পতিবারের ঘটনায় ববি মুষড়ে পড়ে এবং এক পর্যায়ে আত্মহত্যা করে। তিনি বখাটে মুন্নাসহ তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আশুগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম ফারুক জানান, এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে। মুন্নাকে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

তথ্যসূত্র: ইত্তেফাক, ১৬ মার্চ ২০১৩

Advertisements