সুশাসন ও মূল্যবোধের মাধ্যমে সামাজিক অবক্ষয় রোধ করার আহ্বান জানিয়ে অনুষ্ঠিত হলো বিতর্ক প্রতিযোগিতা

শিশু নির্যাতন বন্ধে সুশাসনের পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করা দরকার- শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, এমপি

Press Release from NGCAF (Debate Competetion-2015)শিশু নির্যাতন বন্ধ করতে হলে সুশাসনের পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী জনাব নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। গত ১৬ অক্টোবর, ২০১৫ সকাল ১০:৩০টায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় এ মন্তব্য করেন। ‘সুশাসন নয়, সামাজিক অবক্ষয়ই শিশু নির্যাতনের প্রধান কারণ’– শীর্ষক বিশেষ এই সচেতনতাবৃদ্ধিমূলক বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম ও ডিবেট ফর ডেমোক্রসি।

মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার শিশু নির্যাতন বন্ধে সচেষ্ট রয়েছে। আমাদের শিক্ষার উদ্দেশ্য হলো মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন নাগরিক তৈরি করা এবং তাদেরকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করা। আমরা চাই, সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। এজন্য রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে হবে। আর এ পরিবর্তন আনয়নে নেতৃত্ব দিবে আমাদের তরুণ প্রজন্ম। নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও আমাদের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে মেধার পরিচয় দিচ্ছে। আমরা আশা করি, তারা জ্ঞানার্জনের পাশাপাশি মূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ হিসেবেও গড়ে উঠবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের শিক্ষাক্ষেত্রে এমডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আমরা সফল। বর্তমানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছেলেশিশুর চেয়ে মেয়েশিশুর ভর্তির হার বেশি। মাধ্যমিকেও প্রায় সমান। এটা এক বিরাট অর্জন। আমরা দারিদ্র্য দূরীকরণেও সফলতা অর্জন করেছি। আমরা আশা করি, ভিশন-২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে সক্ষম হবো।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সেন্ট যোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ব্রাদার রবি পিউরিফেকশন সি.এস.সি এবং ব্র্যাক-এর জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি ও মাইগ্রেশন কর্মসূচির পরিচালক জনাব শীপা হাফিজা।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান জনাব হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ-এর সভাপতিত্ব ও সঞ্চালনায় ‘সুশাসন নয়, সামাজিক অবক্ষয়ই শিশু নির্যাতনের প্রধান কারণ’- শীর্ষক বিষয়ে সংসদীয় পদ্ধতিতে সরকারি দল হিসেবে বজ্রযোগিনী জে. কে উচ্চ বিদ্যালয়, মুন্সীগঞ্জ এবং বিরোধী দল হিসেবে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, ঢাকা অংশগ্রহণ করে।

অনুষ্ঠানে পর্যালোচক অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোশাররফ হোসেন – পরিচালক, বাংলাদেশ শিশু একাডেমী এবং জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম-এর সমপাদক জনাব নাছিমা আক্তার জলি ।

ব্রাদার রবি পিউরিফেকশন সি.এস.সি বলেন, ‘শিশুরা দুর্বল, তাই তাদের ওপর বিভিন্ন ধরনের নির্যাতন হয়। শিশুদের ওপর নির্যাতন বন্ধে আইন-শৃখলা বাহিনীকে সোচ্চার থাকতে হবে। পাশাপাশি আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে এবং সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।’

শীপা হাফিজা বলেন, ‘শিশু নির্যাতন বন্ধে সামাজিক অবক্ষয় রোধ করতে হবে। এজন্য আমাদেরকে মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন হতে হবে। একইসাথে সমাজের সর্বস্তরে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আমাদের শিশুরা তাদের মেধার বিকাশের মাধ্যমে নিজেদের তৈরি করছে। এর মাধ্যমে আমরা এক সমৃদ্ধশালী দেশে পরিণত হবো। আমাদের উচিত হবে তাদের বিকশিত হওয়ার পরিবেশ তৈরি করে দেয়া।’

নাছিমা আক্তার জলি আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা সবাই মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হব, শিশু নির্যাতন বন্ধে আইন প্রয়োগের পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করবো এবং দেশকে এগিয়ে নেবো।’

Advertisements